বাংলাদেশের সংবিধানের অর্থবিলের বিস্তারিত(৮১ নং অনুচ্ছেদ)

অর্থবিল বা বাজেট বাংলাদেশ সরকার প্রণীত একটি বার্ষিক দলিল যাতে রাষ্ট্রের বাৎসরিক আয়-ব্যয়ের পরিকল্পনা প্রকাশ করা হয়। জাতীয় বাজেটের মূল অংশ দুটি । প্রথম অংশ রাজস্ব আদায় সংক্রান্ত। এই অংশে সরকারের রাজস্ব ব্যবস্থা ও আদায় সংক্রান্ত প্রস্তবসমূহ বিবৃত থাকে দ্বিতীয় অংশে থাকে সরকারী ব্যয়ের প্রস্তাব সমূহ। প্রতি বৎসর একটি আইনপ্রস্তাব বা “বিল” আকারে জাতীয় বাজেট জাতীয় সংসদে উত্থাপন করা হয়। একে বলা হয় অর্থ বিল। সংসদ সদস্যরা অনুমোদনের পর এটি আইনে পরিণত হয়। বাংলাদেশে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড রাজস্ব প্রস্তাবসমূহ প্রণয়ন করে এবং অর্থ বিভাগ ব্যয় প্রস্তাবসমূহ প্রণয়ন করে। বাংলাদেশে প্রতি বৎসর জুন মাসে জাতীয় বাজেট প্রণয়ন করা হয় এবং অনুমোদনের পর তা পরবর্তী অর্থবৎসরের জন্য কার্যকর হয়। । দেশের অর্থ মন্ত্রী জাতীয় সংসদের অর্থ বিল পেশ করেন।

বিভিন্ন দেশের সংবিধানে অর্থবিলঃ
———————————————————-
ভারতের সংবিধানের ১১০ অনুচ্ছেদে অর্থবিল সংক্রান্ত বিধান দেওয়া হয়েছে। ১১০ অনুচ্ছেদের এইসব শর্ত পূরণ না করে আর্থিক বিল কোনও অর্থ বিল হতে পারেনা।অর্থ বিলগুলি কেবলমাত্র লোকসভায় (ভারতীয় সংসদের সরাসরি নির্বাচিত ‘জনগণের ঘরে’) উপস্থাপন করা হয়।লোকসভায় গৃহীত অর্থ বিলগুলি রাজ্যসভায় (রাষ্ট্রের এবং আঞ্চলিক আইনসভা দ্বারা নির্বাচিত বা রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নিযুক্ত) সংসদের উচ্চকক্ষকে প্রেরণ করা হয়। রাজ্যসভা হয়তো অর্থ বিলগুলি সংশোধন করতে পারে না তবে সংশোধনী দেওয়ার সুপারিশ করতে পারে। লোকসভার স্পিকার যদি আর্থিক বিল বলে গ্যারান্টি না দেয় তবে এটি অর্থবিল হতে পারেনা।
পাকিস্তানে ১৬০ নং অনুচ্ছেদ এ National Finance Commission গঠন করার কথা উল্লেখ আছে । এর মাধ্যমে কর আরোপ নিয়ন্ত্রণ, রদবদল, মওকুফ বা রহিতকরণ করে থাকে ।

বাংলাদেশের সংবিধানে অর্থ বিলঃ
————————————————–
বাংলাদেশের সংবিধানে অর্থবিল সংক্রান্ত বিস্তারিত অনুচ্ছেদ রয়েছে । নিম্নে এ সম্পর্কে আলোচনা করা হলঃ
১) সংবিধানের ৮১ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, অর্থবিল বলতে নিম্নলিখিত বিষয়সমূহের সকল বা যে কোন একটি সম্পর্কিত বিল বুঝাবে ঃ
.
ক. কোন কর আরোপ নিয়ন্ত্রণ, রদবদল, মওকুফ বা রহিতকরণ;
খ. সরকার কর্তৃক ঋণ গ্রহণ বা কোন গ্যারন্টিদান, কিংবা সরকারের আর্থিক দায়-দায়িত্ব সম্পর্কিত আইন সংশোধন;
গ. সংযুক্ত তহবিলের রক্ষণাবেক্ষণ, অনুরূপ তহবিলে অর্থ প্রদান বা অনুরূপ তহবিল থেকে অর্থদান বা নির্দিষ্টকরণ;
ঘ, সংযুক্ত তহবিলের ওপর দায় আরোপ কিংবা অনুরূপ কোন দায় রদবধল বা বিলোপ;
ঙ. সংযুক্ত তহবিল বা প্রজাতন্ত্রের সরকারি হিসাব বাবদ অর্থ প্রাপ্তি, কিংবা অনুরূপ অর্থ রক্ষণাবেক্ষণ বা দান, কিংবা সরকারের হিসাব-নিরীক্ষা;
চ, উপরোক্ত উপ-দফাসমূহে নির্ধারিত যে কোন বিষয়ের অধীন কোন আনুষঙ্গিক বিষয় ।
.
অর্থবিল মন্ত্রী বা যে কোন সদস্য উত্থাপন করতে পারেন । কোন বেসরকারি সদস্য অর্থবিল উত্থাপন করতে চাইলে তাকে রাষ্ট্রপতির অনুমতি নিতে হয়। অর্থবিল সংসদে গৃহীত হলে রাষ্ট্রপতি তাতে অবশ্যই সম্মতি প্রদান করেন।
২) অনুচ্ছেদ ৮১(২) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী নিম্ন লিখিত বিষয় অর্থবিল হবেনাঃ
ক) কোন জরিমানা বা অন্য অর্থদণ্ড আরোপ বা রদবদল, কিংবা লাইসেন্স-ফি বা
খ) কোন কার্যের জন্য ফি বা উসুল আরোপ বা প্রদান কিংবা
গ) স্থানীয় উদ্দেশ্যসাধনকল্পে কোন স্থানীয় কর্তৃপক্ষ বা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক কোন কর আরোপ, নিয়ন্ত্রণ, রদবদল, মওকুফ বা রহিতকরণের বিধান।
এইগুলোকে অর্থসংক্রান্ত বিল বলা হয়ে থাকে ।
৩) অনুচ্ছেদ ৮১(৩) অনুসারে, প্রতিটি অর্থবিলে রাষ্ট্রপতির সম্মতিদানের সময় স্পীকার স্বাক্ষর করে সার্টিফিকেট দিবেন যে, এটি একটি অর্থবিল। এই সার্টিফিকেট নিয়ে কোন আদালতে প্রশ্ন তোলা যাবে না।

৪) অনুচ্ছেদ ৮২ অনুযায়ী কোন অর্থ বিল, অথবা সরকারী অর্থ ব্যয়ের প্রশ্ন জড়িত রহিয়াছে এমন কোন বিল রাষ্ট্রপতির সুপারিশ ব্যতীত সংসদে উত্থাপন করা যাবে না।
______________________________________________

★কোন সাজেশান থাকলে কমেন্টে জানাবেন
(সূত্রঃ বিভিন্ন গণমাধ্যম ,ওয়েবসাইট ,ব্লগ,সাংবিধানিক রাজনীতির বই থেকে সংগৃহীত, সম্পাদিত ,সংক্ষেপিত একটি মৌলিক লেখা। ।

মুহাম্মদ ইরফান উদ্দীন
উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা
৩৭ তম বিসিএস নন-ক্যাডার

Share :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!